উড়ুক্কু গাড়ি বানাচ্ছে চীন!

উড়ুক্কু গাড়ি তৈরিতে এগিয়ে এসেছে চীন। সম্প্রতি চীনে উড়ুক্কু গাড়ি তৈরির জন্য নতুন নকশার পেটেন্ট আবেদন করা হয়েছে। টেলিগ্রাফ অনলাইনের এক খবরে এ তথ্য জানানো হয়েছে।
দীর্ঘদিন ধরেই মানুষের কল্পনায় স্থান করে নিয়েছে উড়ুক্কু গাড়ি। যা এতদিন ছিল কেবল বৈজ্ঞানিক কল্পকাহিনীতে এখন বাস্তবের জগতেও পরীক্ষামূলকভাবে চলে এসেছে। যুক্তরাষ্ট্রের মহাকাশযান নির্মাতা প্রতিষ্ঠান টেরাফুগিয়া এতদিন উড়ুক্কু গাড়ি তৈরির কথা জানিয়েছিল। এবার চীনের গবেষকেরা উড়ুক্কু গাড়ি তৈরির পরিকল্পনা করছেন।
সাউদার্ন চায়না এভিয়েশন ইন্ডাস্ট্রি গ্রুপ সম্প্রতি উড়ুক্কু গাড়ির নকশা ও গাড়ির প্রযুক্তির জন্য পেটেন্ট আবেদন করেছে।
পেটেন্ট আবেদনে বলা হয়েছে, গাড়ি আকাশে ওড়ানোর জন্য দুটি বড় আকারের পাখা থাকবে। এই পাখা দুটি গাড়ির নীচে সামনে ও পেছনে দিকে পরস্পর বিপরীত দিকে ঘুরতে থাকবে। এ ছাড়াও গাড়ির মাঝ বরাবর দুটি ছোট আকারের পাখা পাশাপাশি ঘুরতে থাকবে। এই দুটি পাখা গাড়ি আকাশে ওড়ানোর সময় চালককে নিয়ন্ত্রণ সুবিধা দেবে। বড় দুটি পাখান নীচে বসানো বিশেষ প্লেট আকাশে গাড়িটির দিক ঠিক রাখবে।
চালক ও যাত্রীর জন্য এই উড়ুক্কু গাড়িতে কতখানি জায়গা থাকবে তা এখনই ধারণা করা সম্ভব নয়। তবে প্রযুক্তি বিশ্লেষকেরা বলছেন, উড়ুক্কু গাড়ির এটি প্রাথমিক নকশা মাত্র। এর আরও উন্নতি করে শিগগিরই উড়ুক্কু গাড়ি তৈরির কাজ শুরু করতে পারে প্রতিষ্ঠানটি।

এর আগে যুক্তরাষ্ট্রের প্রতিষ্ঠান টেরাফুগিয়া ‘ট্রানজিশন’ নামে উড়ুক্কু গাড়ি তৈরির কথা জানিয়েছিল। টেরাফুগিয়ার দাবি, তারা ট্রানজিশনের পাশাপাশি টিএফ-এক্স নামে নতুন এক ধরনের উড়ুক্কু গাড়ির নকশা করছে যে রাস্তায় চলবে আবার দ্রুত গতিতে আকাশেও উড়বে। এর জন্য আলাদা রানওয়ের প্রয়োজন পড়বে না। এ গাড়ি চালানোর জন্য আলাদা করে বিমান চালনার প্রশিক্ষণ প্রয়োজন হবে না। গাড়ি চালানোর ক্ষেত্রে সাধারণ গাড়ি চালানো আর কম্পিউটার চালানোর দক্ষতা থাকলেই চলবে।

প্রযুক্তি গবেষকেরা আশা করছেন, সেদিন আর বেশি দূরে নয় যেদিন রাস্তার পাশাপাশি আকাশেও উড়বে গাড়ি।

জিএসপি স্থগিতাদেশ দ্রুত প্রত্যাহার হবে

যুক্তরাষ্ট্রের বাজারে অগ্রাধিকারমূলক বাজারসুবিধা (জিএসপি) এখন স্থগিত হয়ে আছে।
তবে শিগগিরই এ স্থগিত আদেশ প্রত্যাহার হয়ে যাবে বলে আশা করছেন বাণিজ্যমন্ত্রী তোফায়েল আহমেদ।
বাণিজ্যমন্ত্রী বলেছেন, ‘যেসব কারণে যুক্তরাষ্ট্র জিএসপি স্থগিত করেছে, তার বেশির ভাগই সমাধান করা হয়েছে।’ তাই এপ্রিল মাসের মধ্যেই এ স্থগিত আদেশ প্রত্যাহার হয়ে যাবে বলে আশা করছেন তিনি। একই সঙ্গে আরও বেশি ক্ষেত্রে জিএসপি সুবিধাপ্রাপ্তির প্রচেষ্টাও চলছে বলে জানান।
ঢাকা চেম্বার অব কমার্স অ্যান্ড ইন্ডাস্ট্রির (ডিসিসিআই) নতুন পরিচালনা পর্ষদ গতকাল রোববার বাণিজ্যমন্ত্রীর সঙ্গে তাঁর দপ্তরে সাক্ষাৎ করতে এলে তাঁদের জিএসপি নিয়ে আশাবাদের কথা জানান বাণিজ্যমন্ত্রী।
তোফায়েল আহমেদ বলেন, আগামী দিনে বিশ্বের যে পাঁচটি দেশের অর্থনৈতিকভাবে সমৃদ্ধ হওয়ার উজ্জ্বল সম্ভাবনা আছে বাংলাদেশ তার একটি। এ সম্ভাবনা কাজে লাগাতে হবে। এ জন্য ব্যবসায়ীদের সঙ্গে পরামর্শ করে কর্মপদ্ধতি ঠিক করতে হবে।
বৈঠকে ঢাকা চেম্বার ব্যবসায় আস্থা ফিরিয়ে আনা এবং আস্থা ফিরিয়ে আনতে সরকারের পক্ষ থেকে স্বল্প, মধ্যম ও দীর্ঘমেয়াদি কর্মপরিকল্পনা প্রণয়নসহ ১১ দফা সুপারিশ তুলে ধরে।
সংগঠনের সভাপতি শাহজাহান খান বলেন, কয়েক মাসের রাজনৈতিক আন্দোলন ও সহিংসতায় দেশে যে নেতিবাচক ভাবমূর্তির সৃষ্টি হয়েছে এবং ব্যবসায়ীদের মধ্যে আস্থাহীনতা দেখা দিয়েছে, তা ফিরিয়ে আনতে রাজনৈতিক স্থিতিশীলতা একান্ত প্রয়োজন।
বৈঠকে বাণিজ্যসচিব মাহবুব আহমেদ, ঢাকা চেম্বারের দুই সহসভাপতি ওসামা তাসীর, খন্দকার শহীদুল ইসলাম উপস্থিত ছিলেন।
বাণিজ্যমন্ত্রী পরে ঢাকায় যুক্তরাষ্ট্রের দূতাবাসের ভারপ্রাপ্ত রাষ্ট্রদূত জন ডানিলোয়িজের সঙ্গে বৈঠক করেন।
এ ছাড়া হস্তশিল্প প্রস্তুতকারক ও রপ্তানিকারক সমিতি (বাংলাক্রাফ্ট) এবং বাংলাদেশ প্লাস্টিক দ্রব্য প্রস্তুত ও রপ্তানিকারক সমিতির নেতাদের সঙ্গে মতবিনিময় করেন।